সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
logo
আলুর কোল্ড স্টোরেজে মিষ্টি --------!
পূবালী কোল্ড স্টোরেজে মজুদকৃত ১১৩ ড্রাম মিষ্টি ডাকাতিয়ায় ১০ দোকানের ১ লাখ টাকা জরিমানা
প্রকাশ : ২৯ জুন, ২০১৬ ১৩:০৪:৫২
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: চাঁদপুর শহরের পুরাণবাজার ৩নং কয়লাঘাট এলাকার পূবালী আইচ এন্ড কোল্ড স্টোরেজ থেকে চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন মিষ্টির দোকানের মজুদকৃত ১১৩ ড্রাম মিষ্টি জব্দ করা হয়েছে। জব্দকৃত মিষ্টিগুলো ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকার আইনে ডাকাতিয়া নদীতে ফেলে বিনষ্ট করা হয়েছে। একই সাথে ১০টি দোকানের মালিকের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে ১ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। গতকাল ২৮ জুন মঙ্গলবার বিকেলে চাঁদপুরের কর্তব্যরত কোস্টগার্ড সদস্যদের কাছে গোপনে সংবাদ আসে পুরাণবাজার পূবালী আইচ এন্ড কোল্ড স্টোরেজে ড্রামভর্তি অবস্থায় জাটকা সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে। এ সংবাদের ভিত্তিতে কোস্টগার্ড ওই কোল্ড স্টোরেজে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় জাটকার পরিবর্তে একটি ড্রামের মুখ খুলে দেখতে পায় পর্যাপ্ত পরিমাণ মিষ্টি আলুর বস্তার সাথে মজুদ করে রাখা হয়েছে। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আবদুল হাইকে জানানো হয়। তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করার জন্যে সদ্য বিদায়ী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জয় কুমার মোহন্তকে ঘটনাস্থলে পাঠান। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মজুদ করে রাখা মিষ্টির ড্রামের উপর মাটি ও বালু দেখতে পায়। পরবর্তীতে তিনি ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকার আইনের ৪৩ ধারায় মিষ্টির ড্রামগুলো জব্দ করেন। একই সাথে পুরাণবাজারের দুলাল সুইটস, সুনন্দা কেবিন, শ্রীকৃষ্ণ ঘোষ, করুনা মিষ্টান্ন ভান্ডার, নতুনবাজার মিষ্টিমেলা, ক্যাফে ঝিল, কৃষ্টক্যাফে, পুরাণবাজার খায়ের মুন্সীর দোকান, বালিয়ার ইত্যাদি সুইটমিট, লোহারপুর প্যারাডাইস। ১০টি দোকানের ১১৩ ড্রামে (৫০ কেজি পরিমাণ) অনুমান ৫ হাজার ৬শ’ ৫০ কেজি মিষ্টি ডাকাতিয়া নদীতে ফেলে দেয়া হয়। যার আনুমানিক মূল্য ৭ লাখ ৯১ হাজার টাকা। প্রতিটি দোকান মালিকের কাছ থেকে কোল্ড স্টোরেজের আলুর বস্তার সাথে মিষ্টির ড্রাম রাখার অপরাধে ১০ হাজার টাকা করে নগদ ১ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীরা জানায়, পূবালী আইচ এন্ড কোল্ড স্টোরেজের মালিক শাকিল আহমেদের নির্দেশে হিসাবরক্ষক পুরাণবাজার নিতাইগঞ্জ এলাকার গৌরাঙ্গ দে মিষ্টি ব্যবসায়ীদের সাথে হাত করে দীর্ঘ বছর ধরেই এ ধরনের অপরাধ কর্মকা- চালিয়ে আসছে। যেসব ব্যবসায়ীদের মিষ্টি বিনষ্ট করা হয়েছে সেসব ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন সমিতি থেকে লোন এনে পবিত্র ঈদুল ফিতরের সময় মিষ্টি বিক্রির লক্ষ্যে এসব মিষ্টি তৈরি করে বাসা-বাড়িতে ফিজিং করতে না পারায় বিগত সময়ের মতো কোল্ড স্টোরেজের মালিক শাকিল আহমেদ ও গৌরাঙ্গ দের সাথে আঁতাত করে পূবালী আইচ এন্ড কোল্ড স্টোরেজে এনে মজুদ করে। হিসাবরক্ষক গৌরাঙ্গ দে জানান, একেকটি ড্রাম রাখা বাবদ তাকে মিষ্টির মালিকরা ৫০ টাকা করে দিতো। অভিযানে উপস্থিত ছিলেন কোস্টগার্ড স্টেশন কমান্ডার সাব লেঃ আতাহার আলী, ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকার দপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবাশিষ রায়সহ কোস্টগার্ডের সদস্যরা। এদিকে জনগণের প্রশ্ন, মিষ্টি রাখার অপরাধে মিষ্টির দোকানীদের মিষ্টি বিনষ্ট এবং জরিমানা করা হলেও অপরাধের প্রশ্রয়দাতা পূবালী কোল্ড স্টোরেজের মালিক বা ম্যানেজারের কোনো জরিমানা ও আইনী ব্যবস্থা না নেয়া হয়নি কেনো? এ নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর