শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০
logo
কচুয়ায় কোরআন শরীফের অবমাননা নিয়ে উত্তেজনা
প্রকাশ : ২৯ জুন, ২০১৬ ১২:৪৮:৪১
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: কচুয়া উপজেলার সাচার গ্রামে এক বেরোজদারি কর্তৃক পবিত্র কোরআন অবমাননায় ধর্মপ্রাণ মুসলি্লদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রমজান আলী (২৮) সাচার গ্রামের তালুকদার বাড়ির দৌলত মিয়ার পুত্র। সে একজন ইয়াবা সেবনকারী ও বেরোজদারি। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রমজান আলী তার স্ত্রী রাশিদাকে বলে, ক্ষুধা পেয়েছে, ভাত দাও। তখন রাশিদা পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করছিলেন। রাশিদা স্বামীকে বলেন, কোরআন শরীফের আর সামান্য কিছু পড়া বাকি রয়েছে, ঐ বাকি পড়াটুকু শেষে করে ভাত দেবো। এ কথায় মাদকাসক্ত স্বামী রমজান আলী প্রচ- ক্ষ্যাপে গিয়ে রাশিদার সম্মুখ থেকে কোরআন শরীফ ছিনিয়ে নিয়ে ঘরের পূর্ব পাশের পরিত্যক্ত ডোবায় ছুড়ে ফেলে দেয়।
এ খবর আশপাশে ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসীর মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ নিয়ে গত রোববার সালিসের আয়োজন করে রমজান আলীর বিচার করা হবে বলে ঘোষণা দিলে তার পূর্ব দিন শনিবার রমজান আলী তার স্ত্রী রাশিদাকে নিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এতে এলাকাবাসী আরও ক্ষুব্ধ হয়। তারা সালিসে রমজান আলীকে হাজির করতে তার পিতা-মাতার উপর চাপ সৃষ্টি করে। এ চাপের মুখে পিতা-মাতাও এক পর্যায়ে বাড়িছাড়া হয়ে যায়। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি পুলিশের কানে পেঁৗছে। সোমবার এএসপি (হাজীগঞ্জ সার্কেল) আবদুল হানিফ ও কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইব্রাহিম খলিল ঘটনাস্থলে যান। তারা ঘটনার সত্যতা যাচাই করেন এবং রাষ্ট্রীয় ও ধর্মীয় আইন মোতাবেক রমজান আলীর বিচারের আশ্বাস দিয়ে স্থানীয় জনগণকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান।
কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ইব্রাহিম খলিল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আগামী ১ জুলাই শুক্রবার থানায় এ ব্যাপারে ধর্মীয় আলেমদের নিয়ে বৈঠক হবে। সে বৈঠকে রমজান আলীকে হাজির করার জন্যে তার পিতা-মাতাকে বলে দেয়া হয়েছে। আশা করি ঐ বৈঠকে বিষয়টির একটি সুষ্ঠু সমাধান হবে। ধর্মীয়ভাবে সমাধানে পেঁৗছতে না পারলে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর