সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১
logo
বজ্রপাতে ডিভাইজ নষ্ট ও বিকল্প ব্যবস্থা বিকল
শহরে ১৮ ঘণ্টা পর বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু।।
পুরোপুরি স্বাভাবিক হতে আরো তিন দিন সময় লাগবে
প্রকাশ : ১৫ জুন, ২০১৬ ১৬:৫৭:০৪
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: চাঁদপুর পাওয়ার স্টেশনে গত শনিবার রাতে অস্বাভাবিক বজ্রপাতের ফলে ডিভাইজ নষ্ট ও বিকল্প ব্যবস্থায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বিকল হওয়ার ফলে চাঁদপুর শহরে প্রায় একটানা ১৮ ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকার পর গতকাল ১৪ জুন মঙ্গলবার কুমিল্লা বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী এবিএম আবদুল্লাহর নেতৃত্বে কুমিল্লা বিদ্যুৎ বিভাগের প্রকৌশলীবৃন্দ ও স্থানীয় প্রকৌশলীরা ভোর ৬টা থেকে মেরামত কাজ শুরু করে দুপুর ২টায় আংশিক বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করে। চাঁদপুর বিদ্যুৎ বিভাগ জানান, গ্রিডের বিপর্যয় কাটিয়ে উঠে পুরোপুরি বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করতে আরো ২/৩ দিন সময় লাগতে পারে। গত ১২ জুন শনিবার মধ্যরাতে হঠাৎ মুষলধারে বৃষ্টি এবং অস্বাভাবিক বজ্রপাতের ফলে শহরের নতুনবাজার গুনরাজদী এলাকায় চাঁদপুর পাওয়ার গ্রিড স্টেশনের ব্যাপক ক্ষতি হয়। শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহের যন্ত্রাংশগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ব্রেকার, সার্কিট ও ডিভাইজারসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে পড়ে। রোববার দুপুরে বিকল্প পন্থায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করা হয়। গত সোমবার রাত ৮টায় বিকল্প বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইনটি বিকল হয়ে পড়লে স্থানীয় প্রকৌশলীরা তাৎক্ষণিক টানা কয়েক ঘণ্টা মেরামতের চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে রাতভর অন্ধকারে থাকতে হয় শহরবাসীকে।
    আকস্মিক এই বিপর্যয়ের বিষয়ে চাঁদপুর পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী আ ক ম মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গত শনিবার রাতে অস্বাভাবিক বজ্রপাতে শহরের নতুনবাজার গুণরাজদী এলাকার চাঁদপুর পাওয়ার স্টেশনের দুটি ডিভাইজের মধ্যে একটি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়। অন্যটি দিয়ে কোনোরকমভাবে রোববার দুপুরে বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু রাখা হয়। সোমবার সন্ধ্যায় সেটিও বিকল হয়ে যায়। যার ফলে গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশগুলো প্রতিস্থাপন ছাড়া আমাদের পক্ষে কোনোভাবেই বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করা সম্ভব না হওয়ায় জরুরি ভিত্তিতে ঢাকা টঙ্গী থেকে যন্ত্রাংশ এনে দুটি ডিভাইজ মেরামত করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, ডিভাইজ দুটি পুরোপুরি সক্রিয় হতে আরো ২/৩ দিন লাগবে। আপাততঃ পর্যায়ক্রমে শহরের বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করা হয়েছে। এদিকে গতকাল সকালে চাঁদপুর পাওয়ার স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, কুমিল্লা বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী এবিএম আবদুল্লাহর নেতৃত্বে কুমিল্লা থেকে আসা ৬ জন প্রকৌশলী ও ১০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ স্থানীয় প্রকৌশলী এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মেরামত কাজে অংশ নিয়ে দুপুর ২টায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করতে সক্ষম হয়। কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, সোমবার রাতে এখানকার গ্রিডে বিপর্যয়ের বিষয়টি আমাকে অবহিত করা হয়। এর পরপরই আমি প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ ও লোকবল নিয়ে রাতেই রওনা হয়ে ভোরে কাজ শুরু করি। তিনি আরো জানান, যে দুটি ডিভাইজ বজ্রপাতের কারণে নষ্ট হয়ে গেছে সেগুলো মূলতঃ অনেক পুরনো ছিলো। এখন যেগুলো প্রতিস্থাপন করা হয়েছে সেগুলো অনেক টেকসই। আশা করি, এ ধরনের বিপর্যয় হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর