শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯
logo
হাজীগঞ্জে ড্রেজার ও বালুর ঘাট নিয়ে বিপাকে
প্রকাশ : ০৯ এপ্রিল, ২০১৬ ২৩:৫১:৪০
প্রিন্টঅ-অ+

ফাইল ছবি

শরীফ চৌধুরী

চাঁদপুর; চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ পৌরসভায় একটি বালুঘাট,  একটি ড্রেজার ও ট্রাকের মালিকানা নিয়ে দো-টানা চলছে। এ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বাদী আবুল খায়ের মনা। তিনি ২০১৪ সালে আলীগঞ্জস্থ ডাকাতিয়া নদীর উত্তর পাড়ে একটি বালুরঘাট ও ড্রেজার এবং ট্রাকের মালিকানা দাবীতে গত ১০/৬/২০১৪ ইং সনে হারানো সম্পদ ফিরে পেতে চাঁদপুর আদালতে মামলা দায়ের করেন।  অভিযোগ উঠেছে, আদালতের কাগজপত্র গোপন করে থানা পুলিশকে ভুল বুঝিয়ে কৌশলে বালুর ঘাট, ড্রেজার ট্রাকটি লুপে নেয় মামলার বিবাদী কাজী মো. মোবারক হোসেন গং। ড্রেজার ও বালুঘাটসহ ট্রাকটি এখন জোরপূর্বক দখলে রেখে ব্যবসা চালিয়ে আসছেন তিনি। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত গত ৪ অক্টোবর’১৫ ইং একটি আদেশ কপিতে দেখা গেছে, হাজীগঞ্জ থানা কর্তৃক জব্দকৃত ড্রেজার মেশিন বাদীপক্ষের জিম্বায় পাওয়ার জন্য আবেদন পত্র দাখিল করেন। ওই আবেদন পত্রের সাথে মামলা নং ১৬২/১৪ এর আদেশ ও  আরজির সই মোহর নকলের ছায়া লিপি ফিরিস্তি দাখিল করা হয়। একই মালামাল নিয়ে পূর্ব বর্ণিত মামলার আদেশ থাকায় ওই আদালত হতে নতুন কোন আদেশ প্রদান যুক্তি সংগত নয়। সংক্ষুব্দ পক্ষকে আদালতের স্বরণাপন্ন হতে পরামর্শ দেয়া হয়। এ প্রসঙ্গে মামলার বাদী আবুল খায়ের বলেন, গত ৪ অক্টোবরের আদেশ কপি গোপন রেখে কাজী মোবারক হোসেন পুলিশকে ভুল বুঝিয়ে ড্রেজারটি নিয়ে গেছে। যা সম্পূর্ণ বেআইনি। তিনি আরো বলেন, দীর্ঘদিন এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, ব্যবসায়ী ইকবাল ভুঁইয়া ও এনায়েত যোগসাজশে আমার এই অপুরণীয় ক্ষতি করেছে। মহামান্্য আদালতের কাছে আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু ও দৃষ্ট্রান্ত মুলক শাস্তি কামনা করছি। এদিকে একক মালিকানা দাবি করে অন্য কথা বলছেন মামলার বিবাদী কাজী মো. মোবারক হোসেন। তিনি জানান, বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য একাধিকবার বৈঠক হয়েছে। বৈঠকের কোন রায় মেনে নেয়নি বাদী আবুল খায়ের মনা। এখন আদালতে মামলা করেছে। তাতেও রায় পেয়েছি আমি। এখন আর এ বিষয়ে কথা বলতে চাই না। তবে মামলার বাদী আবুল খায়ের মনা বলছেন, মামলাটি চলমান রয়েছে। বর্তমান জজ কোটে মামলা রিভিউ চলছে। অথচ আমার সম্পদগুলো জোরপূর্ব ক্ষমতা দেখিয়ে ব্যবহার করছেন।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর