বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০
logo
পহেলা বৈশাখ উদযাপনকল্পে জেলা প্রশাসনের প্রস্তুতি সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ লুৎফর রহমান
বৈশাখী আবহাওয়া আমাদের কৃষ্টি ও সংস্কৃতি
প্রকাশ : ৩০ মার্চ, ২০১৬ ১২:০৪:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: পহেলা বৈশাখ ১৪২৩ উদযাপনকল্পে জেলা প্রশাসনের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে সকলের মতামতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ লুৎফর রহমান (সার্বিক) তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, পহেলা বৈশাখ বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্যমণ্ডিত একটি উৎসব। বাঙালি ঢঙে, বাঙালি সাজে সজ্জিত হয়ে এ দিনটি সামাজিক এবং পারিবারিকভাবে পালন করা হয়। বৈশাখী আবহাওয়া আমাদের কৃষ্টি ও সংস্কৃতি। বাঙালির সংস্কৃতি উৎসব পহেলা বৈশাখ।
    ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে ৩ দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা করা হবে। ১৪ এপ্রিল সকাল ৯টায় হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে বর্ণাঢ্য সাজে সজ্জিত হয়ে সকল সাংস্কৃতিক সংগঠনের অংশগ্রহণে বর্ষবরণের শোভা যাত্রা বের করা হবে। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক পরিভ্রমন করে প্রেসক্লাব সংলগ্ন ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে গিয়ে সমাপ্ত হবে। ঐ স্থানেই সকাল সাড়ে ৯টায় বৈশাখী মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও চাঁদপুর পৌরসভার সার্বিক সহযোগিতা এবং পৃষ্ঠপোষকতায় বৈশাখী মেলা মঞ্চে পল্লীগীতি, ভাটিয়ালি, ভাওয়াইয়াসহ দেশীয় গানের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া মেলা প্রাঙ্গণে স্টল স্থাপন করা হবে। এছাড়া বড় স্টেশন মোলহেডে জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে হা-ডু-ডু খেলার প্রতিযোগিতা বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত হবে। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে সুবিধাজনক সময়ে হাসপাতাল, কারাগার ও সরকারি শিশু পরিবারে উন্নতমানের খাবার বিতরণ করা হবে। ৩ দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার নিরাপত্তার দায়িত্বে পুলিশের পাশাপাশি আনসার বিডিপি সদস্যদের রাখা হবে। বৈশাখী শোভাযাত্রায় জেলা পুলিশ বাদকদল ও জেলা স্কাউটস্ বাদক দল অংশগ্রহণ করবে। অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনা এড়াতে বৈশাখী উৎসবস্থলের পাশে  ডাকাতিয়া নদীতে ফায়ার সার্ভিস, ডুবুরি ও নৌ-পুলিশ স্পীড বোট নিয়ে নদীতে অবস্থান করবে। পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উদ্যাপন কমিটি ও ৩টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। উপ-কমিটিগুলো হলো ঃ আনন্দ শোভাযাত্রা উপ-কমিটি, আপ্যায়ন উপ-কমিটি ও বৈশাখী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মেলা মাঠ ও মঞ্চ সজ্জা উপ-কমিটি। সভায় আরোও সিদ্ধান্ত হয়, বৈশাখী মেলা উপলক্ষে শহরের আশেপাশে মেলার আয়োজন করা হয়ে থাকে। ঐসব মেলায় জুয়ার আসর বসানো হয়। বিশেষ করে মঠখোলা ও মহামায়ায় এসব জুয়ার আসর বসে থাকে। তবে যারা এ বছর জুয়ার আসর বসাবে তাদেরকে ধরে এনে শাস্তি দেয়া হবে।
    এসময় বক্তব্য রাখেন এএসপি হেডকোয়ার্টার শাকিল আহমেদ, নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উদয়ন দেওয়ান, প্রেসক্লাব সভাপতি বিএম হান্নান ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল রুশদী, জেলা স্কাউটস্ কমিশনার অজয় ভৌমিক, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শহীদ পাটোয়ারী, জেলা কালচারাল অফিসার আবু সালেহ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা কাউসার আহমেদ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আক্তার হোসেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সভাপতি তপন সরকার।
    আরোও উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শাহ মোহাম্মদ মাসুদ, জেলা আনসার কমান্ডার লুৎফর রহমান, চাঁসক শিক্ষক পরিষদের সাবেক সম্পাদক আলমগীর বাহার, চিত্রশিল্পী সাধন সরকার, নৃত্য শিক্ষিকা অনিমা সেন চৌধুরী, সোমা দত্ত, বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদের সভাপতি পিযূষ কান্তি রায় চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মিঠুন বিশ্বাস, মোহনবাঁশি স্মৃতি সংসদের সভাপতি অজিত দত্ত, অনুপম নাট্যগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক গোবিন্দ মণ্ডলসহ সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মকর্তাবৃন্দ।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর