শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০
logo
মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের আলোচনা সভায় ডাঃ দীপু মনি এমপি
বাংলার মানুষ এখন আর কারো মুখাপেক্ষী নয়
প্রকাশ : ২৮ মার্চ, ২০১৬ ১৭:১০:২৩
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি বলেছেন, সাড়ে সাত কোটি বাঙালির অনেক ত্যাগ তিতিক্ষার মধ্য দিয়ে এ স্বাধীন ভূখ- অর্জিত হয়েছে। এ স্বাধীনতা কেউ আমাদেরকে দয়া করে দেয় নি বা আলোচনার টেবিলে বসে অর্জন হয়নি। এ স্বাধীনতা রক্তে কেনা, অসংখ্য মা বোনের সম্ভ্রমহানির বিনিময়ে পাওয়া। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাঙালিরা সেদিন একটি সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখছিলো। আর সেই স্বপ্নকে নস্যাৎ করার জন্যে নিজেদের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা কুচক্রি মহল সবসময় তৎপর ছিলো। তারা বঙ্গবন্ধুর নামকে বাংলাদেশ থেকে মুছে দিতে সবসময় গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকতো। তারাই পঁচাত্তরের পনের আগস্ট ঘটিয়েছে। তিনি বলেন, দেশ স্বাধীনের মাত্র ক' বছর পর বঙ্গবন্ধুর নাম নেয়ার কারণে অসংখ্য মানুষকে নির্যাতন, নিপীড়ন, চাকুরিচ্যুত ও হত্যা করা হয়েছে। আমাদের পরিবারও সে নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এসব নিপীড়ন-নির্যাতনের মধ্য দিয়েও বাংলার মানুষ বঙ্গবন্ধুর নাম হৃদয়ে লালন করেছে। তিনি বলেন, আমাদের ইতিহাস যেমনি অনেক গর্বের ও বীরত্বের, তেমনি অনেক চক্রান্তের ও ষড়যন্ত্রেরও। এ দেশে যেমনি তিতুমীর, ক্ষুদিরাম ও নবাব সিরাজউদ্দৌলার জন্ম হয়েছে, তেমনি মীর জাফর ও খন্দকার মোস্তাকদেরও জন্ম হয়েছে। তাই আমাদের সেসব প্রকৃত ইতিহাস জানতে হবে। যারা একাত্তর ও পঁচাত্তরকে পুরানো ঘটনা বলে ভুলে যেতে বলেন, তারা তাদের অপকর্ম ঢাকতে এসব কথা বলেন। তারা বাঙালিকে বোকা বানিয়ে রাখতে চায়। কিন্তু না, আমাদেরকে সামনে এগুতে হলে সেসব ইতিহাস জানতে হবে এবং ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিতে হবে। আর সে পথে বাংলাদেশ এগুচ্ছে বলেই বাংলার মানুষ এখন পরাধীন নয়, কারো মুখাপেক্ষী নয়। জননেত্রী শেখ হাসিনা সেভাবেই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।
২৬ মার্চ শনিবার সন্ধ্যায় মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস-২০১৬ উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে ডাঃ দীপু মনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, এ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবার দায়িত্ব আমাদের সকলের। বীরের জাতি বাঙালি মাথা উঁচু করে কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যের দিকে এগিয়ে যাবে। শিক্ষা ও বিজ্ঞানের দিকে মনোযোগ দিতে হবে। তথ্যের শক্তিতে আজ আমরা বলীয়ান, এখন প্রয়োজন সততার শক্তি। একাত্তরের চেতনাকে ধারণ করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।
চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডলের সভাপ্রধানে জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে 'মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার' শীর্ষক এই আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার এম এ ওয়াদুদ, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দ বদরুন নাহার চৌধুরী, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক ডাঃ জেআর ওয়াদুদ টিপু, চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাড. জহিরুল ইসলাম ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল হক মন্টু পাটওয়ারী। অনুষ্ঠানে আলোচনার বিষয়বস্তুর উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এএসএম দেলওয়ার হোসেন। তাঁর উপস্থাপিত প্রবন্ধের উপরই বক্তাগণ বক্তব্য রাখেন।
চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শরীফ চৌধুরীর সঞ্চালনায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সভাপতি বিএম হান্নান ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল রুশদী। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ লুৎফর রহমান। অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উদয়ন দেওয়ান, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) চৌধুরী আশরাফুল করিম, জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার লিটুস লরেন্স চিরান, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কালচারল অফিসার আবু সালেহ মোঃ আব্দুল্লাহ, বাবুরহাট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মোশারেফ হোসেন, জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডঃ রঞ্জিত রায় চৌধুরীসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। আলোচনা সভা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন চাঁদপুরের স্থানীয় শিল্পীরা।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর