শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯
logo
শাহজালালে অত্যাধুনিক ড্রোন জব্দ
প্রকাশ : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:৪৩:৩৮
প্রিন্টঅ-অ+
রাজধানী ওয়েব

ঢাকা: হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আমদানি নিষিদ্ধ একটি অত্যাধুনিক ড্রোন জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দারা। শারজাহ থেকে ঢাকায় আসা যাত্রী থেকে এটি জব্দ করা হয়। ড্রোনটি DJI Phantom 4 মডেলের এবং এতে উন্নতমানের ক্যামেরা ও সেন্সর রয়েছে।
 শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ বলছে, ভিডিও শুটিংয়ের পাশাপাশি এটি স্পায়িং (গোয়েন্দা) কাজে ব্যবহার করা যায়। এর কোনো অপব্যবহারের ঝুঁকি আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
ড্রোনটি আটক হয় যাত্রী মো. জাহিদুল ইসলামের(৪০) ব্যাগ থেকে।তিনি মঙ্গলবার রাত ১০ টায় শারজাহ হতে এয়ার এরাবিয়া এয়ারলাইন্সযোগে (ফ্লাইট নং G90515) শাহজালাল বিমানবন্দরে নামেন। পাসপোর্ট তার নাম নজরুল ইসলাম। পাসপোর্ট নং BA 0230084। গ্রামের বাড়ি ভুরকাপাড়া, দৌলতপুর, কুষ্টিয়া।
গোপনে খবর পেয়ে যাত্রীকে আগ থেকেই নজরদারিতে রেখেছিল শুল্ক গোয়েন্দারা। কাস্টমস হলের গ্রিন চ্যানেল অতিক্রম করে যাবার সময় যাত্রীকে থামানো হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ড্রোন থাকার কথা অস্বীকার করেন। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তল্লাশি চালিয়ে তার সঙ্গে থাকা লাগেজ থেকে এসব মালামাল উদ্ধার করা হয়।
শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলছেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জাহিদুল জানিয়েছেন যে, দুবাই থেকে তার এক বন্ধু ঢাকায় কোনো এক ব্যাক্তির কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য এসব গোয়েন্দা সরঞ্জামাদি দিয়েছেন। তিনি নিজে এর মালিক নন।
আটককৃত সামগ্রীর আনুমানিক ওজন প্রায় ১৪ কেজি। এর বিভিন্ন অংশ খুলে প্যাকেজিং করা হয়েছে। এগুলো সংযোজন করে পূর্ণাঙ্গ ড্রোন তৈরি করা হবে। এতে উন্নতমানের ক্যামেরা বসানোর অপশন ও সেন্সর রয়েছে। রিমোট কন্ট্রোলের সাহায্যে এটি পরিচালনা করা হয়।
ড্রোনটির লিটারেচার পর্যালোচনায় দেখা যায় এসব ড্রোন প্রায় এক কেজি ওজনের ভার বহনে সক্ষম। প্রতি ঘন্টায় ৪৫ কিলোমিটার বেগে চলতে পারে। এর আগে জব্দ করা ড্রোনগুলো থেকে এটি আরো উন্নতমানের।
ড্রোন নানা ধরনের নাশকতার কাজে ব্যবহার হতে পারে এই আশঙ্কায় সম্প্রতি বাংলাদেশে এর ওপর আমদানি নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়। সরকারের পূর্ব অনুমোদন ছাড়া ড্রোন আমদানি করা যায় না এবং এর উড্ডয়নের প্রাক্কালে সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয়।
শুল্ক গোয়েন্দা শাহজালালের ফ্রেইট ইউনিটে গত ২৭ জুলাই আরেকটি ড্রোন আটক করেছিল। ওই ড্রোনটি খেলনা ঘোষণা দিয়ে আমদানি করা হয়েছিল। পরে রাষ্ট্রের অনুকুলে বাজেয়াপ্তির উদ্দেশ্যে ড্রোনটি আটক করে কাস্টম হাউসে জমা দেয়া হয়।
বুধবার জব্দ করা ড্রোনের ব্যাপারে শুল্ক আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আটক ড্রোনটি এয়ারপোর্ট কাস্টমসে জমা দেয়া হবে বলে জানিয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ।

রাজধানী এর আরো খবর