বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
logo
সাব্বিরের লাশ নেবেন না বাবা
প্রকাশ : ২৮ জুলাই, ২০১৬ ১২:৫২:১৩
প্রিন্টঅ-অ+
চট্টলা ওয়েব

চট্টগ্রাম : রাজধানীর কল্যাণপুরে নিহত ‘জঙ্গি’ সাব্বিরুল হক কণিক ওরফে সাব্বিরের বাবা আজিজুল হক চৌধুরী ছেলের লাশ শনাক্ত করতে ঢাকা যাচ্ছেন। সেখানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলের মর্গে থাকা ৯ ‘জঙ্গি’র লাশের মধ্যে ছেলেকে শনাক্ত করবেন তিনি।
তবে যদি এই নয় লাশের মধ্যে ছেলেকে খুঁজেও পান তাহলে তিনি দাফনের জন্য সেই লাশ গ্রহণ করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন পুলিশকে।
বুধবার দুপুরে বাংলামেইলকে এ তথ্য জানান চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা। এরআগে সাব্বিরুল হকের পিতা আনোয়ারার বরুমচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আজিজুল হক চৌধুরীকে নিজ কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে কথা বলেন পুলিশ সুপার।
এসপি নুরে আলম মিনা বাংলামেইলকে বলেন, ‘সাব্বির নামে যে মারা গেছে সে আনোয়ারার আজিজুল হকের ছেলে বলে খবর পাওয়ার পর তাকে ডেকে আমি কথা বলি। উনি জানিয়েছেন, ছবি দেখে নিহতদের মধ্যে তার ছেলেও আছে বলে তিনি ধারণা করছেন। সেজন্য আজকেই ঢাকায় গিয়ে মর্গে নিহত সাব্বির তার নিখোঁজ পুত্র সাব্বিরুল হক কণিক কিনা লাশ সনাক্ত করবেন। যদি সত্যিকারেই এই সাব্বিরই কণিক হয় তাহলে ছেলের লাশ গ্রহণ করবেন না বলে জানিয়েছেন।’
এর আগে গুলশান হত্যাকাণ্ডে নিহত জঙ্গিদের লাশও গ্রহণ করেননি পরিবার। এছাড়া শোলাকিয়া, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিহত জঙ্গিদের মরদেহ নিতে আসেননি পরিবার। তাদের বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে আনজুমানে মফিদুল ইসলামের মাধ্যমে দাফন করেছিল পুলিশ।
সোমবার (২৫ জুলাই) পুলিশের অভিযানে কল্যাণপুরে নিহতদের প্রকাশিত ছবি দেখে একজনকে ‘শনাক্ত’ করেন স্বজন ও পুলিশ। তিনি চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বরুমচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আজিজুল হক চৌধুরীর ছেলে সাব্বিরুল হক কণিক (২২) বলে ধারণা করছেন তারা।
সাব্বিরের পরিবারের ঘনিষ্ট এক ব্যক্তি বলেন, ‘নিজের ছেলে বিপথগামী হয়েছে এ খবর পেয়েও আইনি ঝামেলা এড়ানোর পাশাপাশি মানসম্মানের ভয়ে থানায় জিডি পর্যন্ত করেননি আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুল হক চৌধুরী। এখন নিজের ছেলের লাশ নিহত জঙ্গিদের দলে দেখেও চাপা কান্না আসলেও কাউকে কিছুই বলতে পারছেন না তিনি।’
তিনি আরো বলেন, ‘পুলিশি হয়রানি এড়াতে রীতিমত তাকে আত্মগোপনেই থাকতে হচ্ছে। তবে সাব্বিরুলের মা এখনো বিশ্বাস করতে চাইছেন না নিহতদের মধ্যে তার ছেলেও আছেন।’
সাব্বিরুলেন বাবা আজিজুল হক সপরিবারে চট্টগ্রাম শহরের রাহাত্তার পুল এলাকায় বাস করেন। সম্প্রতি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের চাকরি থেকে অবসর নিয়েছেন তিনি। তার বড় ভাই মোজাম্মেল হক চৌধুরী একজন মুক্তিযোদ্ধা। তারা পারিবারিকভাবেই আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত।

২য় রাজধানী এর আরো খবর