মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯
logo
মিটারে সিএনজি অটোরিকশা, ভাড়া কমেছে অর্ধেক
প্রকাশ : ২৭ জুলাই, ২০১৬ ১৪:২৭:০৩
প্রিন্টঅ-অ+
চট্টলা ওয়েব

চট্টগ্রাম : নগরীতে চলছে মিটারবিহীন সিএনজি অটোরিকশা চালকদের বিরুদ্ধে পুলিশ ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থার (বিটিএ) অভিযান। তিন দিনের অভিযানে ইতোমধ্যে ভাড়া নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকদের দৌরাত্ম বন্ধ হয়েছে। মিটারবিহীন অটোরিকশা চালকরা যাত্রীদের কাছ থেকে আগে যে ভাড়াটা আদায় করত তা মিটারে চলায় অর্ধেকে কমে এসেছে।
বুধবার সকাল ৯টা। নগরীর কোতোয়ালী মোড়ে বহদ্দরহাট থেকে সিএনজি করে আসা কর্মজীবী মো. হাসান। মিটারে না চালানোর আগে তিনি আসতেন ১৫০ টাকা ভাড়া দিয়ে। আর এখন মিটারে সিএনজি অটোরিকশা চলায় তার ভাড়া গুনতে হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা। তার সাথে কথা হয় বাংলামেইলের এ প্রতিবেদকের।
তিনি বলেন,  ‘পুলিশের এমন কাজকে সাধুবাদ জানায়। আগে যেখানে দেড়শ টাকা ভাড়া গুনতে হতো আর এখন মাত্র ৭০-৮০ টাকা। তবে এই অভিযান যেন চলমান থাকে।’
নিউমার্কেট মোড়ে আরেক যাত্রী দীপন কুমার দাশ। আগ্রাবাদ যাবেন বলে তিনি সিএনজি অটোরিকশার জন্য দাঁড়িয়ে আছেন। একপর্যায়ে সিএনজিতে উঠবেন ওই সময়ে তার সাথে কথা হয়।
বাংলামেইলকে তিনি বলেন, ‘গত তিনদিন ধরে মিটারেই যাচ্ছি। ভাড়া অনেকাংশে কমেছে, বলা যায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। গতকাল মিটারে এক চালক যেতে চায়নি কিন্তু ট্রাফিক পুলিশকে বলে দিব ওই মুহূর্তে সে আবার মিটারে নিয়ে গেছে। অবশ্যই পুলিশের ভাল একটি উদ্যোগ।’
তবে মিটারে অটোরিকশা চালানোর ব্যাপারে সিএনজি অটোরিকশা চালকদের নীতিবাচক মনোভাব দেখা গেছে। তারা বলছেন, মালিককে অটোরিকশা ভাড়া দিতে হয় ৮০০ টাকা। মিটারে গেলে অনেক সময় জ্যাম থাকে। ফলে নিজের আয়সহ মালিকের ভাড়া পোষায় না।
নজু মিয়া নামে নিউমার্কেট মোড়ে এক সিএনজি অটোরিকশা চালক বলেন, ‘দেখেন প্রত্যেকটা মোড়ে সব সময় জ্যামে পড়তে হয়। এক ঘণ্টা-দেড় ঘণ্টা জ্যামে থাকতে হয়। এমতবস্থায় মিটারে যাওয়া একেবারেই অসম্ভব। মালিককে দিতে হয় ৮০০ টাকা আর নিজের ও পরিবারের একটা ব্যাপার আছে। সব মিলিয়ে আমাদের পোষায় না।’
এ ব্যাপারে বুধবার সকালে মুঠোফোনে উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মাসুদ উল হাসান বাংলামেইলকে বলেন, ‘সিএনজি অটোরিকশা চালকদের অভিযোগ থাকতেই পারে। তারা তাদের মালিককে বিষয়টি বুঝিয়ে বলবে। এছাড়া সবার জন্যতো একই আইনে আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। এভাবে অভিযান চলতে থাকলে মালিক ভাড়া কমাতে বাধ্য।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের যাত্রীদের বিষয়টাও দেখতে হবে। বিভিন্ন সময়ে যাত্রীদের কাছ থেকে আমরা অভিযোগ পেয়ে থাকি। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমাদের চলমান অভিযান। কোনোভাবেই কোনো চালককেই ছাড় দেয়া হবেনা। যতদিন একশভাগ মিটারে সিএনজি অটোরিকশা চলবেনা ততদিন অভিযান চলমান থাকবে।’
উল্লেখ্য, গত রোববার থেকে মিটারে সিএনজিচালিত অটোরিকশা না চালিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থার (বিটিএ)। গত তিন দিনে অভিযানে মোট মামলা হয়েছে ১৯শ ২৫টি ও গাড়ি আটক হয়েছে ৭৭টি। এর মধ্যে ১ম দিনে ৯৫০টি মামলা ও ৪০টি গাড়ি আটক করা হয়। এরপর দ্বিতীয় দিনের অভিযানে ৭৫০টি মামলা ও ৩০টি গাড়ি আটক করা হয়। তৃতীয় দিনে গতকাল (মঙ্গলবার) ২২৫টি মামলা ও গাড়ি আটক করা হয় ৭টি।

২য় রাজধানী এর আরো খবর