শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০
logo
মিতু হত্যা
মুছার ভাইসহ গ্রেফতার ২
প্রকাশ : ০১ জুলাই, ২০১৬ ১৫:৩৪:১৯
প্রিন্টঅ-অ+
চট্টলা ওয়েব

চট্টগ্রাম: এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম (মিতু) হত্যার ঘটনায় আরো দুজনকে গ্রেফতার করার কথা জানিয়েছে চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশ।
শুক্রবার সকালে নগর এবং জেলার রাঙ্গুনিয়া থেকে ওই দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হওয়া দুজন হলেন শাহজাহান ও সাইফুল ইসলাম ওরফে সাকু।
পুলিশের ভাষ্য, এই মামলায় গ্রেফতার হওয়া দুই আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি অনুযায়ী, মাহমুদা হত্যায় অন্যদের সঙ্গে শাহজাহানও সরাসরি অংশ নিয়েছিলেন। সাকু এই হত্যা মামলার অন্যতম সন্দেহভাজন কামরুল শিকদার ওরফে মুছার ভাই।
চট্টগ্রাম নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) দেবদাস ভট্টাচার্য্য শুক্রবার দুপুরে বলেন, সাকুকে রাঙ্গুনিয়া থেকে ও শাহজাহানকে নগর থেকে গ্রেফতার করা হয়। হত্যায় ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি সাকুর কাছ থেকে নিয়েছিলেন তার ভাই মুছা। পরে তা উদ্ধার করে পুলিশ।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার মো. কামরুজ্জামান বলেন, গ্রেফতার হওয়া শাহজাহান ও সাকুকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
গত ৫ জুন সকালে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় চট্টগ্রামের জিইসি এলাকায় গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহমুদা।
হত্যাকাণ্ডের পর তার স্বামী বাবুল আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় তিন ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা করেন।
পুলিশ অভিযান চালিয়ে এই মামলার আসামি ওয়াসিম, আনোয়ার, অস্ত্র সরবরাহকারী ভোলা ও তার সহযোগী মনিরকে গ্রেফতার করে।
পুলিশের দাবি অনুযায়ী, এখনো পলাতক রয়েছেন হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়া মুছা, মো. কালু (২৮), মো. রাশেদ (২৯) ও নূর নবী (২৮)।
পুলিশ বলছে, গ্রেফতার আনোয়ার ও ওয়াসিম তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলেছেন, মাহমুদা হত্যার পুরো বিষয়টির সমন্বয় করেছিলেন মুছা। আর মাহমুদাকে পেছন থেকে ছুরি মারেন নবী।
মুছার স্ত্রী পান্না আক্তারের দাবি, গত ২২ জুন চট্টগ্রামের বন্দর এলাকায় এক আত্মীয়ের বাসা থেকে মুছাকে ধরে নিয়ে যায় ডিবি পরিচয়ধারী লোকজন। এ সময় সন্দেহভাজন নবীও তাদের সঙ্গে ছিলেন।
পুলিশের ভাষ্য, মুছা ও নবী তাদের হেফাজতে নেই। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

২য় রাজধানী এর আরো খবর